আ’মলআক্বীদা

মুহররম ও আশুরা প্রসঙ্গে কয়েকখানা হাদীস

মাওলানা আহমদ হাসান চৌধুরী ফুলতলী

সর্বোত্তম রোযা মুহররমের রোযাঃ
عن أبي هريرة قال : سمعت رسول الله صلى الله عليه وسلم يقول : أفضل الصلاة بعد الفريضة صلاة جوف الليل ، وأفضل الصيام بعد شهر رمضان شهر الله الذي تدعونه المحرم.
-হযরত আবূ হুরায়রাহ (রা.) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, আমি রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লা কে বলতে শুনেছি ফরয নামাযের পর সর্বোত্তম নামায হচ্ছে মধ্যরাতের নামাজ আর রামাদ্বান মাসের রোযার পরে সর্বোত্তম রোযা হচ্ছে আল্লাহর মাসের রোযা যাকে তোমরা মুহাররম বলে থাক।[মুসলিম, আহমদ, হাকিম]

عن ابن سعد ، قال : أتى عليا رجل فقال : يا أمير المؤمنين ، أخبرني شهرا أصومه بعد رمضان قال : لقد سألت عن شيء ما سمعت أحدا يسأل عنه بعد رجل سأل عنه رسول الله صلى الله عليه وسلم فقال : إن كنت صائما شهرا بعد رمضان فصم المحرم ؛ فإنه شهر الله ، وفيه يوم تاب قوم ويتاب على آخرين .

-হযরত ইবনে সা’দ হতে বর্ণিত তিনি বলেন আলী (রা.) এর কাছে এক ব্যক্তি এসে বললেন, হে আমীরুল মু’মিনীন, রামাদ্বান মাস ছাড়া এমন একটি মাসের কথা বলুন যে মাসে আমি [নফল] রোযা রাখতে পারি। তিনি বলেন, তুমি এমন একটি বিষয়ে আমাকে জিজ্ঞেস করেছো যে বিষয়ে কেবল একজনকেই রাসূলুল্লাহ (সা.) কে জিজ্ঞাসা করতে শুনেছি। অত:পর তিনি বললেন, তুমি যদি রামাদ্বান মাস ছাড়া অন্য কোন মাসে রোযা রাখতে চাও তাহলে মুহাররম মাসে রাখবে। কেননা এটি আল্লাহর মাস। [তিরমিযী , দারিমী]

মূসা (আ.)-এর মুক্তির খুশি প্রকাশঃ
عن ابن عباس ، قال : قدم النبي صلى الله عليه وسلم المدينة واليهود تصوم يوم عاشوراء فقال : ما هذا اليوم الذي تصومونه قالوا : هذا يوم عظيم أنجى الله فيه موسى وأغرق آل فرعون فيه فصامه موسى شكرا ، فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم : فنحن أحق بموسى منكم ، فصامه رسول الله صلى الله عليه وسلم وأمر بصيامه
-হযরত ইবনে আব্বাস হতে বর্ণিত : তিনি বলেন, নবী (সা.) মদীনায় শুভাগমন করলেন, সে সময়ে ইহুদীরা আশুরার রোযা রাখত। তিনি (সা.) ফরমালেন এটা কোন দিন যে তোমরা রোযা রাখ? তারা বলল এটি একটি মহান দিন, এদিনে আল্লাহ তা‘আলা মূসা (আ.)-কে [ফিরআওনের হাত থেকে] মুক্তি দিয়েছেন এবং ফেরাউনকে দলবলসহ (নীল নদে) ডুবিয়েছিলেন। মূসা (আ.) এদিনে শুকরিয়াস্বরূপ রোযা রেখেছিলেন।’ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম ফরমালেন ‘আমরাতো তোমাদের চেয়ে মূসা (আ.)-এর উপর অধিক হকদার।’ রাসূলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এদিনে নিজে রোযা রাখলেন এবং রোযা রাখার জন্য আদেশ করলেন। (বুখারী, মুসলিম, আহমদ)

প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহ আলায়হি ওয়াসাল্লাম বেশি গুরুত্ব দিতেন:
عن عبيد الله بن أبي يزيد ، أنه سمع ابن عباس ، يقول : ما رأيت رسول الله صلى الله عليه وسلم يتحرى صيام يوم يلتمس فضله على غيره إلا هذا اليوم يوم عاشوراء وشهر رمضان
হযরত ওবায়দুল্লাহ ইবনে আবী ইয়াযীদ (রা.) হতে বর্ণিত তিনি হযরত ইবনে আব্বাস (রা.)-কে বলতে শুনেছেন, আমি রাসূল (সা.)-কে আশুরার দিন ও রামাদ্বান মাসের রোযা ছাড়া অন্য কোনো রোযাকে এত গুরুত্ব দিতে দেখিনি। (বুখারী, মুসলিম, নাসাঈ)

আশুরার রোযা এক বছরের গুনাহের কাফ্ফারা:
عن أبي قتادة ، قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : صوم عاشوراء كفارة سنة -وصوم عرفة كفارة سنتين سنة قبله وسنة بعده .
-হযরত আবূ কাতাদাহ (রা.) হতে বর্ণিত : তিনি বলেন, রাসূল (সা.) ফরমান আশুরার রোযা এক বছরের (গুণাহের) কাফ্ফারা এবং আরাফার দিনের রোযা পূর্ববর্তী এক বছর ও পরবর্তী এক বছর এই দুই বছরের (গুণাহের) কাফ্ফারা। (মুসলিম, তিরমিযী, ইবনে খুযায়মা)

রামাদ্বান মাসের রোযা ফরয হওয়ার পূর্বে আশুরার রোযা বাধ্যতামুলক ছিল:
أخبرنا عروة بن الزبير ، أن عائشة ، رضي الله عنه قالت : كان رسول الله صلى الله عليه وسلم أمر بصيام يوم عاشوراء قبل أن يفرض رمضان فلما فرض صيام شهر رمضان كان من شاء صام عاشوراء ومن شاء أفطر
-হযরত উরওয়াহ ইবনে যুবায়র (রা.) হতে বর্ণিত, হযরত আয়িশা (রা.) বলেন, রাসুলুল্লাহ (স) রামাদ্বানের রোযা ফরয হওয়ার পূর্বে আশুরার রোযা রাখার জন্য আদেশ দিয়েছিলেন। যখন রামাদ্বান মাসের রোযা ফরয হল যার ইচ্ছা এ দিনের রোযা রাখত যার ইচ্ছা ছেড়ে দিত।
(বুখারী, মুসলিম, তিরমীযি, আবু দাউদ)

আশুরার রোযা দুই দিন রাখার বিধান:
عبد الله بن عباس ، يقول : حين صام رسول الله صلى الله عليه وسلم يوم عاشوراء وأمر بصيامه قالوا : يا رسول الله ، إنه يوم تعظمه اليهود والنصارى فقال رسول الله صلى الله عليه وسلم : فإذا كان العام المقبل صمنا يوم التاسع إن شاء الله تعالى قال : فلم يأت العام المقبل حتى توفي رسول الله صلى الله عليه وسلم
-আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত, তিনি বলেন- রাসূল (সা.) যখন আশুরার দিনে নিজে রোযা রাখলেন এবং সাহাবায়ে কিরামকে রোযা রাখার নির্দেশ দিলেন তখন সাহাবায়ে কিরাম বললেন- ইয়া রাসূলাল্লাহ (সা.)! এটাতো এমন এক দিন যাকে ইয়াহুদী ও খৃষ্টানরা বিশেষ সম্মান দিয়ে থাকে । তখন রাসূল (সা.) ফরমালেন, আগামী বছর আমরা নয় তারিখেও রোযা রাখব ইনশা আল্লাহ! বর্ণনাকারী বলেন, পরবর্তী বছর [আশুরা] আসার আগেই রাসূল (সা.) ইন্তিকাল ফরমান। (মুসলিম, আবু দাউদ )

عن داود بن علي ، عن أبيه ، عن جده ابن عباس ، قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : صوموا يوم عاشوراء وخالفوا فيه اليهود وصوموا قبله يوما أو بعده يوما
-হযরত দাঊদ বিন আলী (রা.) তাঁর বাবা থেকে তাঁর বাবা তার দাদা ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণনা করেন তিনি বলেন, রাসূল (সা.) ফরমান- তোমরা আশুরার দিনে রোযা রাখ। আর এ ব্যাপারে ইহুদীদের সাথে বিরোধিতা/ব্যতিক্রম কর। আশুরার আগে বা পরের দিন রোযা রাখ। (আহমদ, মুসান্নাফে আব্দুর রাজ্জাক )

আশুরায় পরিবার-পরিজনের জন্য খরচ করার ফদ্বীলত:
عن أبي سعيد الخدري ، قال : قال رسول الله صلى الله عليه وسلم : من وسع على أهله يوم عاشوراء وسع الله عليه سائر سنته
-হযরত আবূ সাঈদ খুদরী (রা.) হতে বর্ণিত তিনি বলেন, রাসূল (সা.) ফরমান- যে ব্যক্তি আশুরার দিনে তার পরিবার-পরিজনের জন্য (খরচের ব্যাপারে) উদার হবে; আল্লাহ তা‘আলা তাঁর ব্যাপারে সারা বছর উদার থাকবেন। (তাবারানী, মাজমাউয যাওয়াইদ লিল হায়ছামী )

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *